একাশিতেও গাছ লাগিয়ে ফেরেন ‘গাছদাদু’, স্বীকৃতি পুরস্কারে

তাঁর মাটির দোতলা বাড়ি জরাজীর্ণ। সে দিকে খেয়াল নেই। মন পড়ে থাকে গাছের জন্য। বাড়ির উল্টো দিকের পুকুর ঘিরে তালগাছের সারি। তাতে বাবুই পাখির বাসা। সেই গাছের কয়েকটি নিজের হাতে লাগিয়েছেন তিনি। বাঁকুড়ার সারেঙ্গার শালবনি গ্রামের শ্যামাপদ বন্দ্যোপাধ্যায় নিজের গোটা গাঁয়ে তো বটেই, রুখু জেলার অন্যান্য প্রান্তেও অজস্র গাছ লাগিয়েছেন। লোকমুখে হয়ে গিয়েছেন ‘গাছদাদু’।

শ্যামাপদ যখন আট বছরের, গাছ লাগানো এবং পরিচর্যার শুরু তখনই। সেই বালক এখন একাশির বৃদ্ধ। বয়সকে তুড়ি মেরে আজও তিনি গাছ লাগিয়ে ফেরেন গ্রাম থেকে গ্রামে। প্রকৃতি, পরিবেশকে এমন ভালবাসার জন্য শ্যামাপদকে এ বারের ‘সুদক্ষিণা লাহা স্মৃতি পুরস্কার’ দিল শ্রমজীবী হাসপাতাল। গত রবিবার সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানটি হয় শ্রীরামপুর শ্রমজীবী হাসপাতালে।

পুরস্কার কমিটির সদস্য গৌতম সরকার জানান, শ্যামাপদ ছেলেদের সঙ্গে চাষ করেন। বাড়ির চেহারায় অভাব স্পষ্ট। কিন্তু শ্যামাপদ প্রাণোচ্ছল। তিনি জানান, গত সাত দশকে বিভিন্ন প্রজাতির কয়েক হাজার গাছ লাগিয়েছেন। বট, অশ্বত্থ, খেজুর, আম, জাম, কাঁঠাল, তাল, নারকেল— কী নেই সেই তালিকায়! বস্তায় ফলের বীজ নিয়ে তিনি বেরিয়ে পড়েন। কখনও হেঁটে, কখনও সাইকেলে। তাল গাছ বেশি লাগানোর চেষ্টা করেন। কারণ, তালশাঁস, তালের বড়া, জ্বাল দেওয়া তাল উপাদেয়। প্রোটিনও ভরপুর। তালপাতা দিয়ে হাতপাখা হয়। তালগাছে বাবুই-সহ অন্য পাখি বাসা বাঁধে। শুকনো পাতা জ্বালানির কাজে লাগে। এই গাছ উপকারী, অর্থকরীও।

ওই অনুষ্ঠানে ‘শ্রমজীবী মন’ পত্রিকার বিচারে ‘শর্মিলা ঘোষ সাহিত্য পুরস্কার’ পেয়েছেন প্রবীণ সাহিত্যিক ভগীরথ মিশ্র। অনুষ্টুপ পত্রিকায় প্রকাশিত তাঁর ছোটগল্প ‘রতন নামের ঘোড়া’র জন্য ওই পুরস্কারপ্রাপ্তি। জমিদারি ব্যবস্থার পত্তন এবং প্রজাতন্ত্র গড়ে ওঠার সন্ধিক্ষণ এই গল্পের প্রেক্ষাপট। অনুষ্ঠানের সূচনা হয় হাসপাতালের সেবিকাদের গানে। ছিল গান, স্বরচিত কবিতা, আবৃত্তি। প্রকাশিত হয় ‘শ্রমজীবী মন’ পত্রিকার সংখ্যা।
সৌজন্যে: আনন্দবাজার অনলাইন

Post a Comment

0 Comments
* Please Don't Spam Here. All the Comments are Reviewed by Admin.